• ঢাকা
  • |
  • রবিবার ২৩শে মাঘ ১৪২৯ রাত ১১:৪৫:৩৭ (05-Feb-2023)
  • - ৩৩° সে:
এশিয়ান রেডিও

ঈদের ছুটি শেষে ফিরছেন প্রবাসে, সঙ্গে আনা লাগেজ এখনও পাননি প্রবাসী

ঈদের ছুটি পরিবারের সঙ্গে কাটাবেন। তাই প্রবাসী কামরুল হাসান সৌদি আরব থেকে দেশে এসেছিলেন। ২২ বছরের প্রবাস জীবন কাটিয়ে পরিবারের সঙ্গে ঈদ করা যেন চাঁদ হাতে পাওয়ার মতো। সেজন্য ছেলে, মেয়ে, স্ত্রী, মা আর আত্মীয় স্বজনদের জন্য সঙ্গে নিয়েছেন নানা উপহার। তবে ভাগ্যের নির্মম পরিহাস! ৫ জুলাই সৌদি থেকে দেশে আসেন আর ছুটি শেষে ফিরে যাবেন ২৬ জুলাই। ফিরে যাওয়ার সময় ঘনিয়ে এলেও সঙ্গে আনা দুইটি লাগেজ এখনও পাননি প্রবাসী কামরুল হাসান।এভাবেই প্রতিনিয়ত লাগেজ নিয়ে বিপত্তিতে পড়ছেন প্রবাসীরা। বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ যাত্রীবান্ধব না হওয়ায় ভোগান্তির অভিযোগ তুলছেন প্রবাসীরা।ওমান এয়ারওয়েজের (ডব্লিউওয়াই-০৩১৫) ফ্লাইটে কামরুল হাসান সৌদি আরব থেকে ওমান হয়ে ঢাকায় আসেন। একটি হাত ব্যাগ আর দুইটি লাগেজ ছিল তার সঙ্গে। ওমানের মাস্কাট বিমানবন্দরে তার সঙ্গে থাকা হাত ব্যাগটিও বুকিংয়ে দিতে বাধ্য করে ওমান এয়ার। পরে ঢাকায় এসে শুধু সেই হাত ব্যাগটি পেলেও বাকি দুইটি লাগেজ আর পাননি।কামরুল হাসান বাংলা ট্রিবিউনকে বলেন, আমি সৌদি আরবের রিয়াদ থেকে দেশে আসছি। হজরত শাহজালাল বিমানবন্দরে আনুমানিক সকাল সাড়ে ৮টার দিকে ফ্লাইট অবতরণ করে। ইমিগ্রেশন শেষ করে লাগেজ বেল্টে গেলাম। অনেকক্ষণ অপেক্ষা করেও লাগেজ পাইনি। পরে ওমান এয়ারের একজন কর্মকর্তা জানালেন, আমার লাগেজ একই ফ্লাইটে আসেনি। দেশে আসলে আমার বাড়িতে লাগেজ পৌঁছে দেবে বলে নাম ঠিকানা রেখে দেয় তারা।আশা নিয়ে কুমিল্লায় গ্রামের বাড়িতে চলে যান কামরুল হাসান। তবে বাস্তবতা হচ্ছে, ২১ জুলাই পর্যন্ত লাগেজ পাননি তিনি। অন্যদিকে ছুটি শেষে ২৬ জুলাই সৌদি ফিরতে হবে কামরুলকে । ফলে ফিরে যাওয়ার আগে লাগেজ ফেরত পাওয়া নিয়ে দেখা দিয়েছে অনিশ্চয়তা।কামরুল হাসান বলেন, ‘আমার লাগেজ দুইটিতে কমপক্ষে এক লাখ টাকা মূল্যমানের জিনিসপত্র ছিল। বিমানবন্দর থেকে বলা হয়েছিল, দুই থেকে তিন দিনের মধ্যে বাড়িতে লাগেজ পাঠিয়ে দেওয়া হবে। পাঠানো তো দূরে থাক, ফোনও রিসিভ করছে না। আমার সৌদিতে ফিরে যাওয়ার সময় হয়ে গেছে। ২৬ জুলাই ফিরে যাবো, কিন্তু এখনও লাগেজ পাইনি।’কামরুল হাসান বলেন, ২২ বছর সৌদি আরবে আছি। আগে কখনও এমন পরিস্থিতিতে পড়তে হয়নি। দুই ছেলে, দুই মেয়ে, স্ত্রী, মা, আত্মীয়দের জন্য ঈদ উপলক্ষে কিছু জিনিসপত্র এনেছিলাম। পরিবার পরিজনের সামনে আমি কেমন পরিস্থিতিতে দিন পার করছি, সেটি বলে বোঝাতে পারবো না।সাধারণত বাজেট (লো কস্ট ক্যারিয়ার) এয়ারলাইন্সগুলোর ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ব্যাগেজ লেফট-বিহাইন্ড হয়। বর্তমানে শুধু বাজেট এয়ারলাইন নয়, সব ধরনের এয়ারলাইনের ক্ষেত্রে ব্যাগেজ লেফট বিহাইন্ড বেড়েছে মাত্রাতিরিক্ত হারে। এর মধ্যে ওমান এয়ার, জাজিরা এয়ারওয়েজ, সালাম এয়ার, কাতার এয়ারওয়েজ, সৌদি অ্যারাবিয়ান এয়ারলাইন্স, ফ্লাই দুবাই, এয়ার অ্যারাবিয়া, গালফ এয়ার, সিঙ্গাপুর এয়ারলাইন, কুয়েত এয়ারওয়েজের ক্ষেত্রে ব্যাগেজ লেফট বিহাইন্ড বেশি হচ্ছে।ঈদের সময় ছুটিতে আসা অনেক প্রবাসী দেশে এসে লাগেজ পাননি। কেউ পাঁচ দিন, কেউ ১০ দিন পরে পেয়েছেন। অনেকে এখনও দিন গুনছেন।

ASIAN TV